আফগানিস্তানের যুদ্ধবিরতির কথা হয়েছিল আফগানিস্থান সরকার ও তালিবানর মধ্যে এটি হয়েছিল ঈদ উল আহাদ এর সময় তিন দিনের জন্য।

আফগানিস্তানের যুদ্ধবিরতির দিন ধরে লেগে আছে ঈদুল আহাদ এর আর এখন পর্যন্ত যুদ্ধবিরাম রয়েছে। এই যুদ্ধ বিরামের কারণ হলো মার্চ এ আমেরিকা ও তালেবানের মধ্যে এক চুক্তি ছিল। আফগানিস্তান সরকার 317 জন তালিবান বন্দী কে ছেড়ে দিয়েছে ঈদুল আহাদ এর সময়।

মার্চ 2020 সময়ই আমেরিকা ও তালেবানের মধ্যে কথাবাত্রা হয়ে এক চুক্তি হয়। এই চুক্তির মধ্যে ছিল আমেরিকা তার সৈন্যদের আফগানিস্তান থেকে বের করে নিবে। আর আমেরিকা বলেছিল 135 দিনের মধ্যে তার সৈন্য 8600 জন মধ্যে নিয়ে চলে আসবে। আর 14 মাসের মধ্যে আমেরিকার সব সৈন্য আফগানিস্তান থেকে বের হয়ে যাবে। তালিবান বলেছিল যে আমেরিকার কোন মিত্রদের কে আক্রমণ করবে না।আমেরিকা বলেছিল তালিবানদের উপরে যে সব প্রতিবন্ধ তাদের নেতৃত্বে অপর লাগিয়েছিল সেগুলো তারা ইউনাইটেড নেশন এবং আমেরিকা তাদের প্রতিবন্ধ সরিয়ে নিবে। তালিবান বলেছিল যে তাদের বন্দী 5000 জন সৈন্য কে ছাড়তে হবে এবং তালিবান বলেছিল তাদের কাছে আফগানিস্তান 1000 জন সৈন্য ছেড়ে দেবে।

এখন পর্যন্ত উন্নতি হয়েছে এই চুক্তির 4500 জন তালিবান বন্দীদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।আর তালিবান বলেছিল যে তারা 1000 জন আফগান কে ছেড়ে দেবে তারা বলছে যে, বর্তমানে তালিবান বলছে তারা পুরোই 1000 জন আফগান বন্দীদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মার্চ মাস থেকে এখন পর্যন্ত আফগানিস্তানের যুদ্ধবিরাম বা শান্তি আসেনি। এই চুক্তি হওয়ার পরেও আফগান সৈন্য ও তালেবানের মধ্যে এখন পর্যন্ত যুদ্ধ লেগে আছে। আফগান সৈন্য প্রায় তালিবান 3500 জন কে মেরে ফেলেছে।

এখানে একটি সমস্যা রয়েছে যে আমেরিকা ও তালেবানের মধ্যে যে চুক্তি হয়েছিল তার মধ্যে কিন্তু আফগানিস্তান সরকার ছিল না। এখানে আমেরিকার একটি ভুল হলো যে আফগানিস্তান সরকারকে না ডেকে। এখানে তালিবানের যতগুলো বন্দি ছিল তার মধ্যে 400 জন কে এখন পর্যন্ত ছাড়া হয়নি, এর জন্য আফগানিস্তান সরকার বলেছে এরা খুব একটি গভীর অপরাধের সঙ্গে যুক্ত ছিল যা আফগানিস্তানের সংবিধান তাদেরকে ছাড়তে দেইনা এর জন্য আফগানিস্তান সরকার বলেছে যে তারা তাদের পার্লামেন্ট এ একটি কথাবার্তা বলবে যে এই বন্দীদেরকে ছাড়ানো যায় কি যায় না। তালিবান এক সদস্য আল-জাজিরাকে একটিসাক্ষাৎকার বার্তা করে যেখানে তিনি বলেছিলেন আমেরিকা ও তালেবানের মধ্যে যে চুক্তি হয়েছিল সেখানে তারা বলেছিল যে আমেরিকার কোন মিত্রদের তারা আক্রমণ করবে না কিন্তু তারা কখনোই বলেনি যে তারা আফগানিস্তান সরকারের কে আক্রমণ করবে না।

যদি আফগানিস্থানে তালিবানের সরকার হয় তাহলে ভারতের প্রভাব কি পড়বে। যদি তালিবানের সরকার হয় তাহলে ভারতের ওপর একটি খুবই খারাপ প্রভাব পড়বে। এখানে ভারত সরকার ও তালেবানের মধ্যে সম্পর্ক ভালো না। আর তালিবান এর সরকার হয় তাহলে তালেবান ও আফগানিস্তানের মধ্যে খুব ভালো তাদের সম্পর্ক রয়েছে এর ফলে ভারতের বিরুদ্ধে অনেকগুলো সন্ত্রাস তৈরি হবে। আর আফগানিস্থানে ভারত অনেকগুলো অর্থনৈতিক ইনভেস্ট করেছে যেমন চাবাহার বন্দর।

এখানে বুঝে নিতে হবে যে তালিবান এর সরকার হবে কিন্তু তালিবান কতখানি শক্তি তার কাছে রাখতে পারবে এর জন্য ভারত সরকারকে তালিবানের সঙ্গে কথা বলতে এখন থেকে শুরু করতে হবে।

এখানে আমেরিকার কি লাভ আমেরিকার রাস্ট্রপতির ভোটের প্রতিশ্রুতি ছিল যে তিনি আমেরিকার সৈন আফগানিস্তান থেকে বের করে নিবে।