বিশ্বকে অধ্যয়ন করার জন্য বর্তমান আধুনিক বিজ্ঞান এটি একটি অংশ।

অনেক দেশ অণুবীক্ষণ যন্ত্র পৃথিবীর মহাশূন্যে ছেড়েছে তার সঙ্গে ভারতের(india) রয়েছে।

India ASTROSAT: অস্ট্রোস্যাট হ’ল ভারতের প্রথম উত্সর্গীকৃত বহু-তরঙ্গদৈর্ঘ্য মহাকাশ দূরবীন.ইটি একটি পিএসএলভি-এক্সএলে(PSLV-XL) ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ এ চালু হয়েছিল।

এর দ্বারা ভারতের কাছে অনেক ধরনের তথ্য আছে যে সব গ্রহ কোথায় থেকে কোথায় যাচ্ছে আর তাদের মধ্যে কি পরিবর্তন হচ্ছে তা ভারতের এইসব তথ্য জানতে পারছে।

এই দূরবীন যন্ত্র বিভিন্ন দেশের রয়েছে এবং নাসার কাছে রয়েছে কিন্তু নাসায় এর উপর পরেও যেতে চেষ্টা করছে। নাসা জানে বিশ্বকে ভালো ভাবে ছবি তুলতে চাইলে পৃথিবীর ভূমি স্থান থেকে কিছু উপরে থাকলে সে কিছুটা সুবিধা পেতে পারে।

তাই না আসা 2.5 মিটার একটি দূরবীন পৌঁছাবে পৃথিবীর স্থল থেকেআলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য পর্যবেক্ষণ করার স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার থেকে।

স্ট্রাটোস্ফিয়ার শুরু হয় পৃথিবীর ভূভাগ থেকে প্রায় 12 কিলোমিটার উচ্চতা আর শেষ হয় 50 কিমি উচ্চতা।

এই ধরনের বেলুন প্রয় থাকবে তিন সপ্তাহ মতো। সে তথ্য রেকর্ড গড়বে এক ধরনের তরঙ্গ থেকে।

পৃথিবী থেকে প্রায় 100 কিমি উচ্চতা কে বলে কারমেন লাইন এরপরে শুরু হয় স্পেস(space) বা মহাশূন্য। কিন্তু আমেরিকা মানে 60 থেকে 70 কিমি মধ্যে কারণ অনলাইন শুরু হয়ে যায়।

অ্যাস্ট্রোফিজিকস স্ট্র্যাটোসফেরিক টেলিস্কোপ নামক মিশনটি সাবমিলিমিটার-তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের উচ্চ বর্ণালী রেজোলিউশন পর্যবেক্ষণ(the mission named astrophysics stratospheric telescope foe high spectral resolution observations at submillimeter-wavelengths), বা সংক্ষেপে এএসটিএইচএস(ASTHOS), অস্থায়ীভাবে অ্যান্টার্কটিকার জন্য ডিসেম্বর 2023 সালে চালু করা হবে।