Home Blog

ASTHROS: নাসা একটি বেলুন দ্বারা দূরবীন যন্ত্র পৌঁছাবে আকাশে

বিশ্বকে অধ্যয়ন করার জন্য বর্তমান আধুনিক বিজ্ঞান এটি একটি অংশ।

অনেক দেশ অণুবীক্ষণ যন্ত্র পৃথিবীর মহাশূন্যে ছেড়েছে তার সঙ্গে ভারতের(india) রয়েছে।

India ASTROSAT: অস্ট্রোস্যাট হ’ল ভারতের প্রথম উত্সর্গীকৃত বহু-তরঙ্গদৈর্ঘ্য মহাকাশ দূরবীন.ইটি একটি পিএসএলভি-এক্সএলে(PSLV-XL) ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ এ চালু হয়েছিল।

এর দ্বারা ভারতের কাছে অনেক ধরনের তথ্য আছে যে সব গ্রহ কোথায় থেকে কোথায় যাচ্ছে আর তাদের মধ্যে কি পরিবর্তন হচ্ছে তা ভারতের এইসব তথ্য জানতে পারছে।

এই দূরবীন যন্ত্র বিভিন্ন দেশের রয়েছে এবং নাসার কাছে রয়েছে কিন্তু নাসায় এর উপর পরেও যেতে চেষ্টা করছে। নাসা জানে বিশ্বকে ভালো ভাবে ছবি তুলতে চাইলে পৃথিবীর ভূমি স্থান থেকে কিছু উপরে থাকলে সে কিছুটা সুবিধা পেতে পারে।

তাই না আসা 2.5 মিটার একটি দূরবীন পৌঁছাবে পৃথিবীর স্থল থেকেআলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য পর্যবেক্ষণ করার স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার থেকে।

স্ট্রাটোস্ফিয়ার শুরু হয় পৃথিবীর ভূভাগ থেকে প্রায় 12 কিলোমিটার উচ্চতা আর শেষ হয় 50 কিমি উচ্চতা।

এই ধরনের বেলুন প্রয় থাকবে তিন সপ্তাহ মতো। সে তথ্য রেকর্ড গড়বে এক ধরনের তরঙ্গ থেকে।

পৃথিবী থেকে প্রায় 100 কিমি উচ্চতা কে বলে কারমেন লাইন এরপরে শুরু হয় স্পেস(space) বা মহাশূন্য। কিন্তু আমেরিকা মানে 60 থেকে 70 কিমি মধ্যে কারণ অনলাইন শুরু হয়ে যায়।

অ্যাস্ট্রোফিজিকস স্ট্র্যাটোসফেরিক টেলিস্কোপ নামক মিশনটি সাবমিলিমিটার-তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের উচ্চ বর্ণালী রেজোলিউশন পর্যবেক্ষণ(the mission named astrophysics stratospheric telescope foe high spectral resolution observations at submillimeter-wavelengths), বা সংক্ষেপে এএসটিএইচএস(ASTHOS), অস্থায়ীভাবে অ্যান্টার্কটিকার জন্য ডিসেম্বর 2023 সালে চালু করা হবে।

আনন্দে মাহিন্দ্রা(Anand Mahindra) সাহায্যের প্রস্তাব দিয়েছিলেন মিজগা শেখ এবং ফায়াজ কেন

Anand Mahindra

দেশের ছেলে আর গরিবদের জন্য মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনান মাহিন্দ্রা(Anand Mahindra) কখনো সাহায্য থেকে পিছিয়ে পড়েন না। উনি সাহায্য করার জন্য আগে আসেন। তিনি গরীব মানুষের সাহায্য করার থেকে করার জন্য হাত বাড়িয়ে থাকেন।

আনান মাহিন্দ্রা(Anand Mahindra) সোশ্যাল মিডিয়া খুব সক্রিয় থাকে তিনি লোকজনের এক দম্পতিকে দেখেন যারা গরীবকে খাবার খাওয়াচ্ছেন। ওরা থাকেন মেডেলার আর মিলার থাকে।এই দম্পতিরা এই লকডাউন গরিব মানুষদের কে রাতে না খেয়ে ঘুমাতে দেয়নি ও বাচ্চাদের পড়াশোনা ও থামতে দেননি। তাই তারা তাদের ৪ লক্ষ টাকা জমা পুঞ্জি খরচ করে দিয়েছেন।

 এই খবর দেখে আনান মাহিন্দ্রা(Anand Mahindra) টুইট করে বলেন–এই দেখে আমি নিজে নিচে যেতে পারলাম না আমি জানিনা কোন ধনী মানুষ তারা জমা পঞ্জি কোন দরকারে খরচ করতে পারে কি পারে না আবার টাইমস অফ ইন্ডিয়া খবর যদি সঠিক হয় তাহলে আমি এই দম্পতিকে তার চার লক্ষ টাকা ঘুরিয়ে দেব।

আনন্দ মাহিন্দ্রা তাদের ভর্তুকি দেওয়ার ইচ্ছা করেছেন। আর এই দম্পতির নাম ফায়াজ(Fayaz) আর মিজগা শেখ(Miazga Sheikh)।

মিজগা শেখ  স্বামী ও তার বন্ধু দের নিয়ে এই অসহায় মানুষদের সাহায্য করতে তাদের চার লক্ষ টাকা খরচ করে দিয়েছে আর তারা এই চার লক্ষ টাকা দিয়ে ঘর কিনতেন তাই বাঁচিয়েছিলেন। দুইজন মিলে প্রায় 1 হাজার জন মানুষকে খাবার খাওয়ানো রেশন দিয়েছেন।

রাজনাথ সিং(Rajnath Singh) কারগিল(Kargil Day) দিবসের দিন কি বললেন

kargil war

কারগিল 21 তম দিবসে রাজনাথ সিং(Rajnath Singh) বললেন দেশের সৈন্যদের দের সেলাম করলেন আর চিনার পাকিস্তানের শত্রুদের সাবধান করলেন।

এই দিন এত গুরুত্বপূর্ণ যে ভারত পাকিস্তানের শৈন্য দের হারয়ে ভারত কারগিলের যুদ্ধ জয় করে। আর এই যুদ্ধ 21 বছর আজ পূরণ হলো।

এখনো পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতেরএখনো সেই রকম সম্পর্ক এখন ও রয়েছে।আর পাকিস্তান এর খারাপ ব্যবহারের জন্য ভারতের সঙ্গে তার সম্পর্ক কখনো ভালো হতে নাও পারে।

যে চীনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক ভালো ছিল সেও ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হয়ে গেছে।

ভারতের সুরক্ষা মন্ত্রী তাই আজকের দিনে তিনি বলেন।

রতন টাটা( Ratan Tata) কি বলেছেন ব্যবসার টাকা বাঁচানো আর ব্যবসার নীতি নিয়ে

rotan tata

করোনা ভাইরাসে থেকে যা ক্ষতি হয়েছে তার নানান কোম্পানি এই ক্ষতি থেকে বের হওয়ার জন্য কর্মচারীদের বাদ দেওয়া বেতন কাটা এই সব ধরনের কাজ করছে তাতে রতন টাটা(Ratan Tata) কি বলছেন ।

কিন্তু কিন্তু রতন টাটা এসব কোম্পানির কাজ গুলো নিয়ে তিনি একমত নন। তিনি মনে করেন কোন দুর্যোগ থেকে বের হওয়ার জন্য কোম্পানি থেকে কর্মচারী বাদ দেওয়া তিনি এসব ঠিক মনে করেন না।

YOURSTORY  ওয়েবসাইটের সঙ্গে তিনি কথা বলতো ছেন য়ে যাদের আপনি বাদ দিচ্ছেন যা আপনার সঙ্গে সারাজীবন কাজ করছে যা আপনার সঙ্গে দিয়েছে।যখন খারাপ সময় এসেছে তখন আপনি তাদের হাত ছেড়ে দিচ্ছেন। যখন এই ধরনের কাজ করবেন তখন আপনার বিবেকের উপরে কথা দাঁড়াবে।

এরপর তিনি বলেন কোন কোম্পানি তার কর্মচারীর ওপরে সহযোগিতা না করলে তখন তার খুব মুশকিল।

আপনি যেখানে আছেন বা যেখানেই থাকেন এই করোনা ভাইরাস এর প্রভাব সবার ওপরে পড়েছে এর বদলে আপনাকে আপনার কাজের নিয়ম বদলাতে হবে।

কোম্পানির লাভ নিয়ে তিনি কথা বললেন য়ে এখন সবাই লাভের পিছনে দৌড়াচ্ছে কিন্তু তাদের সকলের নৈতিক তা হবে। ব্যাবসার একমাত্র উদ্দেশ্য লাভ না যা আপনার কাস্টমার আর শেয়ারহোল্ডারদের জন্য সঠিক নৈতিকতা হোক।

রতন টাটা এইসব কথা বলেছেন তাতে কি তার কোম্পানি থেকে কোন কর্মচারী বের করেছে এখন পর্যন্ত কোন খবর আসেনি যে তাদের কোম্পানি থেকে কোন কর্মচারী বের করা দেওয়া হয়েছে কিন্তু কোম্পানির কর্মচারীদের বেতনের ১ থেকে ২০ পার্সেড এর মধ্যে কেটে নেওয়া হয়েছে।

প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ সীমানার রেখার(LAC) জন্য ভারতে ড্রোন(bharat drone) তৈরি করা

dhart drone

ডিআরডিও(DRDO) দ্বারা ভারত ড্রোন যা পুরোপুরি তৈরি হয়েছে ভারতে। যা তৈরি করেছে শুধু বিরোধীদের ওপর নজরদারি করার জন্য।

এটি পৃথিবীর মধ্যে সবথেকে সক্রিয় হালকা ড্রন। যা পুরোপুরি ভাবে তৈরি করেছে ডিআরডিও (DRDO )।

এই ড্রোনটি যেকোনো সময় যেকোনো জায়গায় আর সঠিকভাবে বিরোধীদের কে নজরদারি রাখতে পারে আর এর সঠিকতা খুবই বেশি। যায় এটি খুব ভালো নজরদারি করতে পারে।

এটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যা বুঝতে পারবে কে বন্ধু আর কে বিরোধী।

এই ড্রোন খুব খারাপ আবহাওয়া ও খুব ঠান্ডা তে ভালো করে চলতে পারে ও এর কোন অসুবিধা হবে না। আর তার সঙ্গে সে সঙ্গে সঙ্গে ভিডিও দিতে পারে। আর কেউ যদি গভীর জঙ্গলের মধ্যে থাকে তাও সে বুঝতে পারবে।

এটি রাত্রি তেও চলতে পারে ও রাত্রির ক্যামেরা লাগানো হয়েছে ও তার সঙ্গে বিরোধীদের রেডার থেকে বেঁচে যেতে পারে।

ভারত শ্রীলঙ্কায় সৌর বিদ্যুৎ উদ্যান স্থাপন(solar power park) করবে

india srilanka solar park

ভারত তৈরি করবে একটা সৌরশক্তি পার্ক শ্রীলংকার মধ্যে।

এটি একটি মাত্র প্রকল্প, কিন্তু ভারতের ধারণা আছে যে তার আশেপাশে দেশগুলি এরকম সৌরশক্তি পার্ক তৈরি করবে। এটি হবে ইন্টারন্যাশনাল সোলার অ্যালায়েন্স( INTERNATIONAL SOLAR ALLIANCE) প্রকল্পের মধ্যে যা তৈরি করবে এনটিপিসি(NTPC).

সোলার পার্ক- ভাদলা সোলার পার্ক হ’ল ভারতের বৃহত্তম পার্ক যা ইনডিয়া অবস্থিত যা ভাদলা, ফালোদি তহসিল, যোধপুর জেলা, রাজস্থান, ভারতের মোট 10,000 একর (40 কিলোমিটার) জুড়ে বিস্তৃত।

পার্কটির মোট ক্ষমতা ২,২৪৪ মেগাওয়াট.

এটার কারণ কি ভারতছাড়ো চায়নার প্রভাব ভারতের আশেপাশে দেশগুলির থেকে কমানো।

ভারতের নতুন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য জ্বালানি মন্ত্রনালয় আগামী দশ বছরে আইএসএ(ISA) সদস্য দেশগুলিকে প্রায় ৫০ বিলিয়ন ডলার বিতরণ করার জন্য ব্যাংকের পক্ষে মতামত আহ্বানের জন্য মন্ত্রিসভা নোটটি সরিয়ে নিতে পারে

কানাডার ভূমিতে ভারতের জাতীয় পতাকা উত্তোলন

india and canada

কানাডার ভ্যাঙ্কুভার শহরে 15 আগস্ট এর ভারতের স্বাধীনতা দিবসের দিন কানাডা লোকাল লোক তাদের শহরে ভারতের পতাকা যাত্রা করবে।

এটি অবস্থিত নান nancouver জেলায় ব্রিটিশ কলম্বিয়া রাজ্যে কানাডায় অবস্থিত।

এই যাত্রা নিউইয়র্ক শহরে হয় সেখানে প্রায় এক থেকে দেড় লাখ লোক আয়োজিত হয়।

Global migration report 2020, হিসেবে ভারতের বিদেশ এর সংখ্যা প্রায় 1.75 কোটি পৃথিবীতে ছড়িয়ে রয়েছে।

ভারতের বিদেশে মন্ত্রী অফিস অনুসারে ভারতের মানুষ বিদেশে থাকে প্রায় ২.8 কোটি মানুষ।

ভারত তার প্রবাসী মানুষের কাছ থেকে অর্থ উপার্জন করে প্রায় 78.6 বিলিয়ন যা 3.4 ভারতের জিডিপি।

ভারত তার কালচার কে বিদেশে দেখানোর জন্য তার প্রবাসী মানুষের কাছে তাদের প্রচারের দায়িত্ব রেখে দিয়েছে

কানাডায় থাকা মানুষের কানাডার লোক সংখ্যা হিসাবে প্রায় চার শতাংশ যার সংখ্যা 14 লাখ।

ডিআরডিও ধ্রুবস্ত্রা এবং পি 7 ভারী সিস্টেম

dhruvastra-and-p7-heavy-system

DRDO থেকে খবর এসেছে ধুরব অস্ত্র পরীক্ষা চলছে আর P7 হের হেভি ড্রপ সিস্টেম তৈরি হয়েছে। এটা আমাদের সনদের জন্য সাহায্য করবে।

P7 Drop system:

ভারত আর পাকিস্তান ও চীনের সঙ্গে অনেক বড় করে সীমা ভাগ করে। এখানে অনেক সময় ছোটমোটো যুদ্ধ হতে পারে বা যেকোনো সময়।এই ছোটমোটো যুদ্ধের সময় কে কত সময়ের মধ্যে তাদের কাছে তাদের অস্ত্র খাবার ইত্যাদি জিনিস পৌঁছে দিতে পারে। তার জন্য ভারত এর DRDO তৈরি করেছে P7 Heavy drop system যা সাত হাজার কেজি ৭ টন বস্ত্র বহন করতে পারে।

আর এটি ভারতের সনদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।

এই পদ্ধতি উৎপাদন করবে L&T কোম্পানি এবং খুব বড় স্টরে।

এই পদ্ধতিতে আমাদের আর্মিকে যেখানে সেখানে ভারী জিনিসপত্র পৌঁছাতে পারবে।

ভারতের সৈন্যদের কাছে মোট চারটি পরিবহন আছে যা হলো – C13J, C17,IL-76, AN-32 এগুলোর মধ্যে বেশিরভাগ রাশিয়া-আমেরিকা তৈরি করেছে।

Dhruvastra Missile:

এটি একটি নাগ মিসাইলের বৈকল্পিক যা হলো ধুরব অস্ত্র যা এন্টি ট্যাংক গাইড মিসাইল যা নিক্ষেপ করতে পারে হেলিকপ্টার থেকে।

ট্যাংকে ধ্বংস করতে DRDO তৈরি করেছে দুই ধরনের অস্ত্র।প্রথমটি তৈরি করেছে যা কোন আর্মি তার ঘাড় থেকে ছাড়তে পারি। এই ধরনের অস্ত্রের নাম হল দ্য ম্যান অ্যান্ড গাইড মিসাইল। জয়াতি আর্মি একাই নিক্ষেপ করতে পারে।

দ্বিতীয় টি হল যা ছাড়তে এর জন্য হেলিকপ্টার এর প্রয়োজনীয় হবে এর নাম হলো দ্রবব অস্ত্র, আর এটি পরীক্ষা-নীরিক্ষা করছে বালাকর ওড়িসা তে।

চাঁদিপুরে ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট রেঞ্জ (আইটিআর) থেকে –৮ কিলোমিটার ব্যাপ্তি নিয়ে ডিআরডিও এবং ভারতীয় সেনাবাহিনী হেলিনাকে পরীক্ষা করেছে।

ওডিশা, 8 ফেব্রুয়ারী 2020 সর্বাধিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসীমা এবং যথার্থতা পরীক্ষা করতে।

হাইয়া সোফিয়ার প্রথম নামাজ

hagia sophia

তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুলে হায়া সোফিয়া কে মসজিদে বদলে পরিণত করা হলো। 24 জুলাই প্রথমবার নামাজ হয়েছে। আগের মাসে তুরস্কে রাষ্ট্রপতি রিচার্ড তৈয়ব আরদোগান হায়া সোফিয়া মিউজিয়াম কে মসজিদে বদলানো আদেশ দিয়েছিলেন।এর আগে ইস্তাম্বুল এর গভর্নর আলী লিয়াকৎ খুব উৎসাহ আছে আর তিনি সেখানে উপস্থিত থাকবেন।

1500 সাল পুরনো ইউনেস্কো বিশ্ব ধরার কে হাজার 934 সালে হায়া সোফিয়া কে মিউজিয়ামে পরিণত করা হয়েছিল।

এই মাসে প্রথমে তুরস্কর আদালতে হায়ার সোফিয়াকে মসজিদের বদলানো আদেশ দিয়েছিলেন।

কোর্টের আদেশ আইএসপিকে এখন মিউজিয়াম আর থাকবে না।

1934 সালের ক্যাবিনেটের আদেশ কে বাদ করে দিল।

এরপর রিচার্জ তৈয়ব এরদোগান আদেশ দেন যে 24 জুলাই শুক্রবার সেখানে নামায আদায় করা যাবে আর প্রত্যেকের জন্য তিনি বলেন প্রত্যেকের খোলা থাকবে।

কিন্তু এই নিয়ে বিশ্বের কাছে তাকে নিন্দা হতে হয়েছে। বৃহস্পতিবার টিভিতে ইস্তাম্বুলের গভর্নর বলেন প্রত্যেকে নামাজ পড়ার আসার আগে সবাই যেন মুখে মাস্ক লাগিয়ে আস্তে আর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলেন।আর শুক্রবার নামাজ পড়ার সময় অনেকে মাস পড়েছিল।

ওতুরস্কর ধর্মের মন্ত্রী বলেন যে এখানে একসঙ্গে এক হাজার মানুষ একসঙ্গে নামাজ পড়বে,আর তিনি বলেন হাইয়া সোফিয়াকে ভিতর থেকে হালকা বদলানো হয়েছে ও বাইরে থেকেও বদলানো হয়েছে। আর রাতেও খোলা থাকবে।আর রাষ্ট্রপতি বলেছেন শুক্রবার নামাজের সময় হাইয়া সোফিয়া তিনি উপস্থিত থাকবেন।

মশার কামড়ের ফলে কি মানুষের শরীরে কোন ভাইরাস হতে পারে?

Mosquito bites can cause a virus in the human body

এর উত্তরে w.h.o. তার ওয়েবসাইটে মিট সেকশনে বলেছিল য়ে আজ পর্যন্ত এখনো কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি যে মশার কামড়ের ফলে করোনা ভাইরাস হতে পারে।

করোনা ভাইরাস হলো রেসপিরেটরি ভাইরাস যা থুথু, কাশি, হাঁচি  থেকে বের হওয়া ছোট ছোট লাল এর কণা থেকে ছড়াতে পারে। কোন করোনাভাইরাস মানুষ হাঁচি বা কাশি ভাই তখন তার ছোট ছোট লাল আর কণাগুলো কোন মানুষের উপরে যে পড়লে তখন তাকে পুরনো ভাইরাস হতে পারে। এর জন্য আপনারা মাঝে মাঝে হাত দূরে থাকুন আর হাঁচি বা কাশি অলা মানুষ থেকে দূরে সরে থাকুন।

করোনা ভাইরাস মশার উপরে কোন প্রতিক্রিয়া করে না এটা গবেষণা বলে। ব্যবহারিক ভাবে বলা যায় না যে করোনা ভাইরাস মশা থেকে ছড়াতে পারে।

একটি ইউনিভার্সিটি রিসার্চের ভারতের তিন ধরনের মশার ওপর করেছে।

এই মশাগুলো নিয়ে ল্যাবে রাখা হয়েছিল এবং দেখা দেখা দেখা শোনা বলছিল যে এই মশাগুলো কি কোন ভাইরাস পাকিস্তান থেকে আলাদা স্থান বহন করতে পারেন। 

বৈজ্ঞানিকরা গবেষণা কেন্দ্রে তারা মশাগুলো কে অনেকভাবে চেষ্টা করেছিল যে কিভাবে মশা গুলোকে অনেক ভাবে ভাইরাসে কে সংক্রমণ করার চেষ্টা করছিল কিন্তু মশাগুলো সংক্রমণ হয়নি। মশা গুলোকে ভাইরাসের সংস্পর্শে রাখা হয়েছিল। তাও কোন কেস পাওয়া যায়নি এরপরে মশাগুলো এরমধ্যে সুই দিয়ে করোনা ভাইরাস ঢোকানো হয়েছিল তারপরও মশার মধ্যে কোন ভাইরাস পাওয়া যায়নি।

বৈজ্ঞানিকরা বলছে যে মশা দিয়ে কোন ভাইরাস ছড়ানো মুশকিল, কোন সংক্রমিত মানুষের কাছে মশাগুলো কামড়ায় তার সত্বেও করোনা ভাইরাস মশার মধ্যে বেঁচে থাকতে পারে না। এর ফলে কোন সংক্রমণ মানুষের কে কামড়ালে কোরোনা ভাইরাস আবার সম্ভাব্য অনেক কমে যায়।

এটি সাইন্টিফিক নেচার রিপোর্ট (nature) নামে ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা হয়েছে।

report:SARS-CoV-2 failure to infect or replicate in mosquitoes: an extreme challenge

ভারতীয় পাবলিক কত সোনা ধরে?

How much Gold Does Indian Public Hold

আন্তর্জাতিক মূল্যে, হোল্ডিংয়ের মূল্য (25,000 টন) হবে 1,135 বিলিয়ন ডলার বা অর্থবছর 19-এ ভারতের নামমাত্র স্থূল গার্হস্থ্য পণ্যের (জিডিপি) 40% এরও বেশি সমান।

ডিমান্ড স্বর্ণ ঋণের জন্য, উভয় ব্যাংক ও নন-ব্যাংকিং ফাইন্যান্সিয়াল কম্পানিজ (NBFCs) মাধ্যমে COVID -19 পৃথিবীব্যাপি অর্থনৈতিক প্রভাব প্রতিক্রিয়ায় উত্থিত হয়েছে।

ফলস্বরূপ, অসামান্য সংগঠিত স্বর্ণ ঋণ অর্থবছরে 2020 প্রযুক্তি আইএনআর 3,448bn ($ 47bn) থেকে অর্থবছরে 2021 সালে আইএনআর 4,051bn ( $ 55.2bn) এর হত্তয়া বলে আশা করা হচ্ছে স্বর্ণ ঋণ ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান বৃদ্ধির একটি গুরুত্বপূর্ণ সক্রিয়করণকারী হয়েছে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে।

আরও পড়ুন: ভারতের কি পারমাণবিক বোমার দরকার?

ভারতের কি পারমাণবিক বোমার দরকার?

Does India Need a Nuclear Bomber

বর্তমানে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং চীন – মাত্র তিনটি দেশ ফ্লাই বোমারু বিমান।

ভারত, বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম বিমান বাহিনী, এই লিগের বাইরে।

এসসিএমপি (SCMP) চীনের সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে যে বোমারু বিমানটির অন্তত 12,000 কিলোমিটার দৈর্ঘ্য হবে যা এমনকি হাওয়াইকে তার নাগালের মধ্যে রাখবে। বিমানটি যদি চীন থেকে আর্টিকের পথ ধরে তবে পুরো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার আকর্ষণীয় দূরত্বে থাকবে।

ভারত কি কৌশলগত বোম্বারদের প্রয়োজন?

চীনের ভূখণ্ডের বিশালতা বিবেচনা করে ভারতকে এ জাতীয় বিমানের একটি বিস্ময়কর সংখ্যার প্রয়োজন হবে।

ভারত তার নিজস্ব কৌশলগত বম্বার তৈরি করতে পারে: মার্কিন সর্বশেষ বোমারু বিমানের বিকাশের সাথে জড়িত মোট উত্পাদন ব্যয় প্রায় ১০০ বিলিয়ন ডলার হিসাবে অনুমান করা হয়, এটি হ’ল মুষ্টিমেয় দেশগুলি তাদের পরিচালনা ও নির্মাণের অন্যতম কারণ।

কৌশলগত বোমারু বিমান ভারতকে যুদ্ধকে শত্রুর ভূখণ্ডের গভীরে নিয়ে যেতে সহায়তা করতে পারে। ভারতের যুদ্ধবিমানকারী, উপরিভাগ থেকে পৃষ্ঠের ক্ষেপণাস্ত্র এবং ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র বোমা হামলাকারীদের পক্ষে দাঁড়াতে পারে কি না, তা এখন এক প্রশ্ন যদি এটি সত্য হয় তবে বড় শক্তিগুলির বোমারু বিমান বিকাশের দরকার নেই।

ব্যয়: আইসিবিএমগুলি খুব ব্যয়বহুল, এমনকি B2 বোম্বারের সাথে তুলনা করে একটি বি 2 বারবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

লোড: একটি আইসিবিএমের এত উত্তোলনের ক্ষমতা নেই, এগুলি পরমাণু অস্ত্র বহন করার জন্য তৈরি করা হয়েছে যা বিশেষ করে ভারী নয়। একটি B2 একই সময়ে প্রায় 40,000 পাউন্ড পেওলড এবং বিভিন্ন ধরণের প্রচলিত বোমা বহন করতে পারে, যা হেফটিয়েস্ট আইসিবিএমের চেয়ে অনেক বেশি।

চীন থেকে হুমকি: এইচ-20 চীন দ্বারা উন্নত প্রথম ডেডিকেটেড কৌশলগত বোমারু বিমান হতে হবে।

আরও পড়ুন: চীন মুন বেস তৈরি করবে চীন কি যোগ দেবে?

চীন মুন বেস তৈরি করবে চীন কি যোগ দেবে?

Russia China to Build Moon Base

একটি চাঁদ বেস চাঁদে মানুষের ক্রিয়াকলাপ বজায় রাখার একটি স্থায়ী অবকাঠামো।

সমঝোতা স্মারকের শর্তাবলীর অধীনে, দুটি দেশ একটি “আন্তর্জাতিক চন্দ্র বিজ্ঞান স্টেশন” তৈরিতে সহযোগিতা করবে এবং অন্যান্য দেশগুলিকেও অংশ নিতে আমন্ত্রণ করার পরিকল্পনা করবে।

রাশিয়ার চীন স্পেস সহযোগিতা: রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রোসকোমোস এক বিবৃতিতে বলেছে, একটি স্মারকলিপিতে এর প্রধান দিমিত্রি রোগোজিন এবং চীনের জাতীয় মহাকাশ প্রশাসন (CNSA) এর জাং কেজিয়ান স্বাক্ষর করেছেন।

এতে বলা হয়েছে যে, চন্দ্র স্টেশনটি “ভূ-পৃষ্ঠে এবং / অথবা চাঁদের কক্ষপথে তৈরি পরীক্ষামূলক গবেষণা সুবিধার জটিল হিসাবে তৈরি করা হবে”।

চীনের মহাকাশ কর্মসূচিতে বিশেষী বিশ্লেষক চেন ল্যান এএফপি বার্তা সংস্থাকে বলেছেন যে প্রকল্পটি একটি “বড় চুক্তি” ছিল।

“এটি চীনের জন্য বৃহত্তম আন্তর্জাতিক মহাকাশ সহযোগিতা প্রকল্প হবে, সুতরাং এটি তাৎপর্যপূর্ণ,” তিনি বলেছিলেন।

চীনের প্রথম গভীর মহাকাশ তদন্ত, ইয়িংহুও -১ কক্ষপথটি ২০১১ সালের নভেম্বরে রাশিয়ার সাথে যৌথ ফোবস-গ্রান্ট মিশন সহ চালু হয়েছিল, তবে রকেট পৃথিবী কক্ষপথ ছেড়ে যেতে ব্যর্থ হয় এবং উভয় তদন্তে ১৫ জানুয়ারী ২০১২-এ ধ্বংসাত্মক পুনরায় প্রবেশের ব্যবস্থা করা হয়।

আর্টেমিস অ্যাকর্ডগুলি শান্তির উদ্দেশ্যে চাঁদ, মঙ্গল, ধূমকেতু এবং গ্রহাণুগুলির নাগরিক অন্বেষণ এবং ব্যবহারে সহযোগিতার নীতিগুলিতে আর্টেমিস প্রোগ্রামে অংশ নেওয়া দেশগুলির সরকারগুলির মধ্যে একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি এবং এর বহিরাগত মহাকাশ চুক্তিতে ভিত্তি করে 1967।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, লাক্সেমবার্গ, ইতালি, যুক্তরাজ্য, এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত: আট চুক্তিগুলি ২০০০ সালের ১৩ ই অক্টোবর আটটি জাতীয় মহাকাশ সংস্থার পরিচালকরা স্বাক্ষর করেছিলেন। ইউক্রেন এবং ব্রাজিল 2020 সালে এটি স্বাক্ষর করে।

আরও পড়ুন: সৌদি আরব আক্রমণ অপরিশোধিত তেল আরও ব্যয়বহুল হয়ে ওঠে।

সৌদি আরব আক্রমণ অপরিশোধিত তেল আরও ব্যয়বহুল হয়ে ওঠে।

The invasion of Saudi Arabia made crude oil more expensive

আসলে কী ঘটেছিল?

সৌদি আরব রাস তনুরা বন্দরে হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম তেল শিপিং বন্দর রস তনুরা বন্দরে একটি ড্রোন পেট্রোলিয়াম ট্যাঙ্কের খামারে ধাক্কা মারে এবং একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের শ্রাপেল ধরণে সৌদি আরমোর আবাসিক এলাকার কাছে পড়েছিল।

হুথির এক সামরিক মুখপাত্র এই হামলার দায় স্বীকার করেছেন।

১৯৯০-এর দশকে হুথি আন্দোলন ইয়েমেনের জায়েদী শিয়া সংখ্যালঘু সদস্য হুসেইন বদরেদ্দিন আল-হাউথি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যা জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ হয়ে থাকে।

হুসেনকে ২০০৪ সালে ইয়েমেনের সেনারা হত্যা করেছিল এবং এই দলটির নেতৃত্ব এখন তার ভাই আবদুল মালিক।

আরও পড়ুন: ভারতে রেকর্ড উচ্চ পেট্রোলের দাম।

ভারতে রেকর্ড উচ্চ পেট্রোলের দাম।

Record High Petrol Prices in India

গত 10 মাসে অপরিশোধিত তেলের দাম দ্বিগুণ হওয়া ভারতের গ্যাস স্টেশনগুলিতে জ্বালানির দাম রেকর্ড করতে ভূমিকা রেখেছে।

ভারতে পেট্রোলের দাম মোটামুটিভাবে 60 ভাগ, বিভিন্ন করের নিয়ে গঠিত যখন এটি ডিজেল ক্ষেত্রে 54 শতাংশ। যে জাতির মাথাপিছু আয় তুলনামূলকভাবে কম, এটি এমন জাতির পক্ষে যথেষ্ট উচ্চ।

কেয়ার রেটিং অনুসারে, ভারতে জ্বালানির উপরে সর্বাধিক কর রয়েছে – পেট্রোলের মূল দামের 260 শতাংশ এবং ডিজেলের জন্য 256 শতাংশ।

জার্মানি এবং ইতালিতে জ্বালানির উপর করের মূল্য খুচরা মূল্যের 65 শতাংশ। যুক্তরাজ্যে, এটি 62 শতাংশ। জাপানে, এটি 45 শতাংশ, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এটি 20 শতাংশ। ভারতে এটি 260 শতাংশ!

পেট্রোল ও ডিজেল অধীনে GST: যদিও GST 1 লা জুলাই 2017 তে চালু করা হয়, পেট্রোল ও ডিজেল বের করে রাজ্যের উচ্চতর নির্ভরতা কারণে রাখা হয়েছে।

পেট্রোলিয়াম পণ্যগুলিকে জিএসটির আওতায় অন্তর্ভুক্ত করা হলে সারা দেশে জ্বালানির সমান দাম থাকবে।

রাজ্যের মধ্যে রাজস্থান 36 শতাংশ ভ্যাট পেট্রোল দেশের পালন জুড়ে সর্বোচ্চ ট্যাক্স, 35.2 শতাংশ তেলেঙ্গানা দ্বারা অনুসরণ কর।

পেট্রোলের উপর 30 শতাংশের বেশি ভ্যাট সহ অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে কর্ণাটক, কেরল, আসাম, অন্ধ্র প্রদেশ, দিল্লি এবং মধ্য প্রদেশ অন্তর্ভুক্ত। ডিজেলের উপরে ওডিশা, তেলঙ্গানা, রাজস্থান এবং ছটিসগড়ের মতো রাজ্যগুলির দ্বারা সর্বাধিক ভ্যাট হারের চার্জ নেওয়া হয়।

পেট্রোলিয়াম রফতানিকারী সংস্থা ও তার সহযোগী সংস্থাগুলির (ওপেক +) বিরুদ্ধে তেল গ্রহণকারী দেশগুলিকে সংগঠিত করার জন্য ভারত কূটনৈতিক প্রচেষ্টা করতে পারে কারণ উত্পাদকরা সরবরাহকে সীমাবদ্ধ রেখে অপরিশোধিত দামকে কৃত্রিমভাবে উচ্চ করে রাখে এবং ইরানের মতো দেশগুলি থেকে সস্তা শক্তির আমদানি পুনরায় শুরু করারও পরিকল্পনা করে এবং ভেনিজুয়েলা তেল কার্টেলকে মোকাবেলা করতে।

ভারত, যা প্রক্রিয়াজাতকরণের 80% এরও বেশি আমদানি করে, 2018-19 সালে লাভজনক শর্তে প্রায় 23.5 মিলিয়ন টন ইরানি ক্রুড আমদানি করে, যা তার প্রয়োজনের প্রায় 10 শতাংশ।

আরও পড়ুন: মোতেরা স্টেডিয়ামের নামকরণ করা হয়েছে নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়াম।

মোতেরা স্টেডিয়ামের নামকরণ করা হয়েছে নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়াম।

Motera Stadium Renamed Narendra Modi Stadium

নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামটি ভারতের গুজরাটের আহমেদাবাদে একটি ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

২০২০ সাল পর্যন্ত এটি বিশ্বের বৃহত্তম ক্রিকেট স্টেডিয়াম এবং ১,১০,০০০ দর্শকের বসার ক্ষমতা সহ সামগ্রিকভাবে দ্বিতীয় বৃহত্তম স্টেডিয়াম।

এটি গুজরাট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের মালিকানাধীন এবং এটি টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ম্যাচের ভেন্যু।

1 মে স্টেডিয়ামের Rungrado 1st Rungra দ্বীপ, পিয়ংইয়ং, উত্তর কোরিয়া একটি মাল্টি উদ্দেশ্য স্টেডিয়াম।

এটি 1989 সালের 1 মে খোলা, এটির প্রথম প্রধান ইভেন্টটি যুব ও শিক্ষার্থীদের 13 তম বিশ্ব উত্সব। এটি বসার ক্ষমতা সহ বিশ্বের বৃহত্তম স্টেডিয়াম।

স্টেডিয়াম নমস্তে ভেরী ইভেন্টের ঘটনাস্থল ছিল এবং ফেব্রুয়ারি 24, 2020 মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আয়োজন করেন।

When I went to Australia in Nov 2018, I learnt that 90,000-seater Melbourne Cricket Ground was the largest in world. It is a proud moment for India today that Motera's 1,32,000-seater stadium has become the world's largest cricket stadium: President Ram Nath Kovind in Ahmedabad

Originally tweeted by ANI (@ANI) on February 24, 2021.

আরও পড়ুন: চিনা এফডিআই অনুমোদনের সূচনা ভারত – চীন বন্ধুরা আবার?

চিনা এফডিআই অনুমোদনের সূচনা ভারত – চীন বন্ধুরা আবার?

India Starts Approving Chinese FDI India

15 জুন গ্যালওয়ান ভ্যালি সংঘর্ষ। 

২০২০ সালের এপ্রিলে সরকার প্রতিবেশী দেশগুলি থেকে কেবল তার পূর্ব অনুমোদনের মাধ্যমে এফডিআই অনুমোদনের নিয়ম পরিবর্তন করেছিল, এমনকি এমন সেক্টরেও যেখানে “স্বয়ংক্রিয়” ছাড়পত্রের অনুমতি ছিল।

এই পদক্ষেপটি চীনা বিনিয়োগকারীদের খুব কষ্ট পেয়েছিল যে তারা সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বিশেষত প্রযুক্তি এবং ডিজিটাল স্পেসে প্রবাহের একটি প্রধান উত্স হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।

পার্শ্ববর্তী দেশগুলির (এবং বাংলাদেশ, পাকিস্তান, চীন, নেপাল, মিয়ানমার, ভুটান, এবং আফগানিস্তান) সত্তা এবং / অথবা ভারতের নাগরিকরা ভারতের সাথে ভূমি সীমানা ভাগ করে নেওয়ার পরে, কেবল সরকারের অনুমোদন পাওয়ার পরে ভারতে বিনিয়োগ করতে পারে। অন্তর্নিহিত ধারণাটি বিনিয়োগগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে এবং তাদের পুরোপুরি সীমাবদ্ধ না করে।

লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ায় কোনও সম্মতি দেওয়া হয়নি, যার ফলে মোট ১২,০০০ কোটি টাকার বিনিয়োগের স্তুপ হয়েছিল।

উত্সাহিত উদ্দেশ্যটি ছিল বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলিতে বাধা বিপ্লবের উদ্ধৃতি দিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে চীনা সত্তা কর্তৃক সুবিধাবাদী অধিগ্রহণের তদারকি করা।

এই সিদ্ধান্তটি কেন ভাল?

২০২০ সালের এপ্রিলে ভারত যখন ভারতের বাজারে চীনা বিনিয়োগকে সীমাবদ্ধ করেছিল, তখন ভারতীয় শেয়ার বাজার সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে ছিল।

আরও পড়ুন: ইউটিএফ (UTF) হারবার সম্পন্ন করার বিষয়ে মালদ্বীপ চুক্তিতে ভারত চীনকে বীট করেছে।

ইউটিএফ (UTF) হারবার সম্পন্ন করার বিষয়ে মালদ্বীপ চুক্তিতে ভারত চীনকে বীট করেছে।

India Beats China in Maldives Agreement on UTF Harbour Done

মালদ্বীপের একটি নৌবাহিনী নেই এবং মালদ্বীপ জাতীয় প্রতিরক্ষা বাহিনীর (MNDF) সশস্ত্র সামুদ্রিক উপাদান হিসাবে কোস্টগার্ডের কাজ নেই।

ভারত এবং মালদ্বীপের মধ্যে শক্তিশালী সামুদ্রিক সহযোগিতা রয়েছে এবং অতীতে, নয়াদিল্লি এমএনডিএফের (MNDF’s) সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য টহল জাহাজ এবং সামুদ্রিক নজরদারি বিমান সরবরাহ করেছে।

মালদ্বীপ জাতীয় প্রতিরক্ষা বাহিনী ইউটিএফ প্রকল্প। উভয় পক্ষের জারি করা একটি যৌথ বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে বন্দরের নির্মাণ সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল “মালদ্বীপ সরকারকে মালদ্বীপ সরকারকে সহায়তা এবং সহযোগিতা করার জন্য এপ্রিল ২০১৩ সালে মালদ্বীপ সরকারকে যে অনুরোধ জানানো হয়েছিল, তার বর্ধিতকরণের জন্য অনুরোধ অনুসারে” মালদ্বীপের প্রতিরক্ষা বাহিনীর সক্ষমতা।

বেজিংও মালদ্বীপের কোস্ট গার্ডের জন্য বন্দর তৈরি করতে আগ্রহী ছিল। ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ নভেম্বরের 2018 সালের নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পরে এবং আবদুল্লাহ ইয়ামিনের স্থলে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণের পরে চীন কোনও অগ্রগতি অর্জন করতে পারেনি। চূড়ান্তভাবে ভারতকে চীন ছেড়ে দিয়েছে ভারত এবং সেপ্টেম্বর 2019 এ প্রকল্পের জন্য রেফারেন্সের শর্তগুলিতে উভয় পক্ষই একমত হয়েছে।

আব্দুল্লাহ ইয়ামিন প্রাক্তন সরকার চীন কাছে ইজারা দিতেন Feydhoo Finolhu ডিসেম্বর 2016. 50 বছর মালদ্বীপ এর এটা নয়া দিল্লি থেকে এলার্ম উত্থাপিত হয়েছিল, বিশেষ করে পরে ডিসেম্বর 2017 উপগ্রহ চিত্র ড্রেজিং ও ল্যান্ডফিল ক্ষুদ্র দ্বীপ প্রসারিত করা কাজ অবতীর্ণ করতাম অবশ্যই চীন ভিত্তিক সংস্থা দ্বারা।

মালদ্বীপের দুই দিনের সফর শেষ করার আগে মালদ্বীপের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মারিয়া দিদির সাথে বৈঠক করার পরে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। মালদ্বীপ সরকার এবং এক্সিম ব্যাংক ইন্ডিয়াও দ্বীপপুঞ্জের প্রতিরক্ষা প্রকল্পগুলির জন্য $ 50 মিলিয়ন লাইন অব ক্রেডিটের জন্য আরও একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

Delighted to inaugurate jointly with FM @abdulla_shahid the Hulhumalé Central Park and the Westside Arrival Jetty. India is privileged to partner with Housing Development Corporation on the expansion of infrastructure in Hulhumalé.

Nice to be among the early users of the renovated jetty.

Originally tweeted by Dr. S. Jaishankar (@DrSJaishankar) on February 20, 2021.

আরও পড়ুন: কাশ্মীরি পণ্ডিত ও বিকাশের বিষয়ে ভারতের ২০২২ সালের কাশ্মীরের পরিকল্পনা।

কাশ্মীরি পণ্ডিত ও বিকাশের বিষয়ে ভারতের ২০২২ সালের কাশ্মীরের পরিকল্পনা।

India’s 2022 Kashmir Plan on Kashmiri Pandits and Development

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছেন, সরকার ২০২২ সালের মধ্যে উপত্যকার সমস্ত বাস্তুচ্যুত কাশ্মীরি পণ্ডিতকে পুনর্বাসনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী আলেকজান্ডার ইভানসের মতে, 160,000–170,000 জন মোট কাশ্মীরি পণ্ডিতের প্রায় 95%, (অর্থাৎ প্রায় দেড় লক্ষ থেকে 160,000) ১৯৯০ সালে জঙ্গিবাদে রাজ্য জড়িয়ে পড়ায় কাশ্মীর উপত্যকা ছেড়ে চলে যায়।

কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক অনুমান অনুসারে, চলমান সহিংসতার কারণে পুরো জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্য থেকে প্রায় তিন লাখ কাশ্মীরি পণ্ডিত অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।

উপত্যকায় প্রায় 600 জন পন্ডিত পরিবার রয়েছেন। যদিও তাদের বেশিরভাগ অংশে ক্ষতিগ্রস্থ করা হয়েছিল, লস্কর-ই-তৈবার মতো সন্ত্রাসবাদী দলগুলি সংগ্রামপুরার (1997), ওয়ান্ডাম (1998) এবং নন্দিমারগ (2003) এ পণ্ডিতদের হত্যা করেছিল।

1997 সালের সংগ্রামপুরে গণহত্যার ঘটনাটি ছিল 1997 সালের ২১ শে মার্চ ইসলামী জঙ্গিদের দ্বারা জম্মু ও কাশ্মীরের বাডগাম জেলার সংগ্রামপুরা গ্রামে সাত কাশ্মীরি হিন্দু গ্রামবাসীকে হত্যা।

1998 ওয়ান্ধামা গণহত্যা – 1998 ওয়ান্ধামা গেন্ডারবল হত্যাযজ্ঞ 26 টি কাশ্মীরি হিন্দু হত্যাকে বোঝায়।

পণ্ডিতরা সাধারণত কাশ্মীরের ভারতের সাথে নিবিড় সংহতকরণের পক্ষে ছিল। যেহেতু Article 370 অনুচ্ছেদ বাতিল হওয়া এই অঞ্চলে ভারতের নিয়ন্ত্রণকে আরও শক্ত করে, তাই এই সিদ্ধান্তকে পণ্ডিত সম্প্রদায় ব্যাপকভাবে স্বাগত জানিয়েছে। অনেক পণ্ডিত ভারত সরকারকে এই পদক্ষেপে উদযাপন করেছেন কারণ তারা বিশ্বাস করে যে এটি উপত্যকায় তাদের ফিরে আসার পথ প্রশস্ত করবে।

২০১৫ সালে রাজ্য সরকার কর্তৃক প্রকাশিত একটি নীলনকোষে পণ্ডিতদের ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য স্কুল, শপিংমল, হাসপাতাল এবং খেলার মাঠ দিয়ে সম্পূর্ণ স্বনির্ভর, প্রচুর রক্ষিত উপনিবেশগুলির প্রস্তাব ছিল।

অঞ্চলটির বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীগুলি এই প্রকল্পটির বিরোধিতা করেছিল এবং কিছুটিকে ফিলিস্তিনি অঞ্চলগুলিতে ইসরায়েলি জনবসতির সাথে তুলনা করে।

কাশ্মীরি রাজনৈতিক দল এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলির পাশাপাশি পণ্ডিত গোষ্ঠীগুলি কেবল এইরকম পণ্ডিত-জনবসতিগুলির তীব্র বিরোধিতায় উঠে এসেছে।

“জম্মু ও কাশ্মীরের শিল্পের সবচেয়ে বড় বাধা হ’ল তারা যদি সেখানে কোনও শিল্প স্থাপন করতে চায় তবে তারা জমি না পেত। (Art)370 প্রত্যাহারের পরে আমরা জমির আইন পরিবর্তন করেছি। এখন পরিস্থিতি এমনই শিল্পগুলি কাশ্মীরের অভ্যন্তরে প্রতিষ্ঠিত হবে। ”অমিত শাহ বলেছিলেন।

শাহ বলেন, 25,000 সরকারি চাকরিতে 2022 দ্বারা জম্মু ও কাশ্মীরের যুবকদের জন্য তৈরি করা হবে এবং যে প্রায় 3,000 কাজ ইতিমধ্যে গত 17 মাসের মধ্যে দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, 8.45 কিলোমিটার বানহাল টানেলটি এই বছর চালু করার পরিকল্পনা করা হয়েছে এবং “আমরা ২০২২ সালের মধ্যে কাশ্মীর উপত্যকাকেও রেলের সাথে সংযুক্ত করতে যাচ্ছি।”

তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে জম্মু ও কাশ্মীর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার এবং ইউটি-তে অনেক উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার প্রায় ১,৫০০ কোটি টাকা সরাসরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ফেলেছে যা জম্মু ও কাশ্মীরের গ্রামগুলির উন্নয়নের পথ সুগম করেছে।

আরও পড়ুন: সংযুক্ত আরব আমিরাতের মার্শ হোপ মঙ্গল মিশন পৌঁছানোর প্রথম মুসলিম জাতি একটি সাফল্য।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মার্শ হোপ মঙ্গল মিশন পৌঁছানোর প্রথম মুসলিম জাতি একটি সাফল্য।

First Muslim Nation to Reach Mars Hope Mars Mission by UAE is a Success

সংযুক্ত আরব আমিরাত মঙ্গল গ্রহে পৌঁছানোর প্রথম আরব দেশ হিসাবে ইতিহাস তৈরি করেছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা 7:42 মিনিটে স্থানীয় সময়, আমিরাতের মঙ্গল মিশন হোপ প্রোবটি লাল গ্রহে পৌঁছেছিল এবং তার ঠিক আধ ঘন্টা পরে তার সংকেতটি পৃথিবীতে ফেরত পাঠায়।

কীর্তি স্মারক। বিশেষজ্ঞরা অনুমান করেছিলেন যে মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথ সন্নিবেশের সম্ভাবনা প্রায় 50% ছিল, কারণ সমস্ত মঙ্গল মিশনের অর্ধেকেরও বেশি বাস্তবে ব্যর্থ হয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মন্ত্রিপরিষদ বিষয়ক মন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আবদুল্লাহ আল জারগাওয়ির মতে, মিশনের ব্যয় হয়েছে 200 মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

আরবিতে “আল-অমল” নামে প্রকল্পটি 20 জুলাই জাপানের তনেগশিমা স্পেস স্টেশন থেকে চালু হয়েছিল এবং এখন এটি লাল গ্রহে যাত্রা সমাপ্ত করছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত মিশন মহাকাশযান তৈরির জন্য কলোরাডো বোল্ডার ইউনিভার্সিটিতে একটি দলের সাথে অংশীদারি করেছিল, বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাগার থেকে বায়ুমণ্ডলীয় ও মহাকাশ পদার্থবিজ্ঞানের দক্ষতার উপর নজর রাখে।

তবে ছোট উপসাগরীয় দেশটি মহাকাশ গবেষণা ও উন্নয়নে বছরের পর বছর ব্যয় করেছে, ২০০৪ এবং ২০১৩ সালে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের পর ২০১৪ সালে তার নিজস্ব মহাকাশ সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিল দক্ষিণ কোরিয়ার অংশীদারদের সাথে যৌথভাবে বিকাশ।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সরকার দেশের স্টেম (বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল, এবং গণিত) খাতকে সম্প্রসারণ করতে বিভিন্ন প্রচারণা শুরু করেছে এবং এটি তার ক্রমবর্ধমান স্পেস প্রোগ্রামকে এটির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসাবে দেখছে। এটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মন্ত্রী পাওয়া বিশ্বের প্রথম দেশ এবং নিজস্ব আদিবাসী প্রতিরক্ষা শিল্পে প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ করছে।

এমিরেটস এক্সপ্লোরেশন ইমেজার (এক্সআই) একটি মাল্টি-ব্যান্ড ক্যামেরা যা 8 কিলোমিটারেরও বেশি অবধি স্থানিক রেজোলিউশন সহ উচ্চ-রেজোলিউশন ইমেজ নিতে সক্ষম। এটি অপটিকাল বর্ণালী অঞ্চলের নমুনা করতে ছয়টি বিচ্ছিন্ন ব্যান্ডপাস ফিল্টার সমন্বিত একটি নির্বাচক হুইল প্রক্রিয়া ব্যবহার করে: তিনটি ইউভি ব্যান্ড এবং তিনটি দৃশ্যমান (আরজিবি) ব্যান্ড। এক্সআই মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডলে জল, বরফ, ধূলিকণা, অ্যারোসোল এবং প্রচুর পরিমাণে ওজোন বৈশিষ্ট্যগুলি পরিমাপ করে। এমবিআরএসসির সহযোগিতায় এলএএসপি-তে যন্ত্রটি তৈরি করা হয়েছিল।

আমিরাত মার্স ইনফ্রারেড স্পেকট্রোমিটার (ইএমআইআরএস) হ’ল একটি ইন্টারফেরোমেট্রিক থার্মাল ইনফ্রারেড স্পেকট্রোমিটার যা এএসইউ এবং এমবিআরএসসি দ্বারা নির্মিত। এটি বায়ুমণ্ডলে তাপমাত্রার প্রোফাইল, বরফ, জলীয় বাষ্প এবং ধূলিকণা পরীক্ষা করে।

এমিরেটস মার্স আল্ট্রাভায়োলেট স্পেকট্রোমিটার (EMUS) হ’ল একটি দূর-অতিবেগুনী ইমেজিং বর্ণালী যা বায়ুমণ্ডলের বৈশ্বিক বৈশিষ্ট্য এবং পরিবর্তনশীলতা এবং হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেন করোনাকে পরিমাপ করতে 100-170 এনএম বর্ণালী পরিসরে নির্গমনের ব্যবস্থা করে। ডিজাইন এবং বিকাশের নেতৃত্বে ছিলেন LASP।

আরও পড়ুন: ইউজির চীনকে CGTN হিসাবে যুক্তরাজ্য থেকে অপসারণ করা হয়েছে – ভারত এবং ইউ.এস. একই কি করতে পারে?

Recent Posts