কিছুদিন থেকে ভারত ও চীনের মধ্যে এক চিন্তা চলছে। আর ভারত-চীনের সঙ্গে ব্যবসার সম্পর্ক ভাঙতে চলছে। প্রথমে ভারত সরকার অনেকগুলো অ্যাপ বন্ধ করে দিয়েছে আর অনেকগুলো অ্যাপ বন্ধ হবার কাছাকাছি রয়েছে।

ভারত সরকার আত্মনির্ভর ভারত এর স্লোগান দিয়েছিল চীনের খারাপ ব্যবহারের জন্য। এরপরে পুরো ভারতে চীনের পণ্য বয়কট শুরু হয়। আর অনেক দেশ চীনের সঙ্গে সম্বন্ধ ভেঙে দিয়েছে। কিন্তু ভারত-চীনের অনেক পণ্য উপরে নির্ভরশীল। ভারত সরকারের কাছে চীনের বস্ত্রের বিকল্প খোঁজা অনেক কঠিন কাজ। একটি রিসার্চ অর্গানাইজেসন যেটি হল আর আই এস(RIS) অনেক পণ্যর বিকল্প খোঁজ বের করেছে। আর বলেছে ভারত চীনের যে সব বস্তুর উপর খুব নির্ভরশীল সেসব পণ্য অন্য দেশ থেকে আনতে পারে যেতে পারে।

আমদানি ও রপ্তানির আইন: বর্তমান সময়ে আমদানি ও রপ্তানির কথা বললে চীন থেকে ভারতের আমদানি দিন দিন বাড়তেই থাকতে আর রপ্তানি খুবই কম। ভারতের রপ্তানি থেকে আমদানি যে হিসাবে বারা দরকার সেই হিসেবে বাড়ছে না কিন্তু আমদানি দিন দিন বাড়তেই চলেছে। এর ফলে ভারতের বাণিজ্যিক ঘাটতি দিন দিন বেড়েই চলেছে।

কত পণ্য আমদানি হয়: ভারত চীন থেকে প্রায়ই 4044 টা অস্ত্র আমদানি করে। আবার এর মধ্যে 3326 টা পণ্যমধ্যে খুব একটা প্রতিযোগিতা নাই। আবার এর মধ্যে 327 টা পণ্য খুবই সংবেদনশীল। আরেক দিকে নজর দিলে খুব সংবেদনশীল পণ্য মধ্যে 10% রয়েছে খুবই সংবেদনশীল পণ্য। আর 76% সংবেদনশীল পণ্য হল মেশিন ও রাসায়নিক দ্রব্য।

সংবেদনশীল পণ্য অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে: 3.7 বিলিয়ন ডলার সংবেদনশীল পণ্য 100% আমদানি অন্য দেশ থেকে করা যেতে পারে। আর 3.8 বিলিয়ন ডলার এর পণ্য 72.6% অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে। 4.2 বিলিয়ন ডলার এর পণ্য রয়েছে যেটি 35.9 শতাংশ অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে আর 10.7 বিলিয়ন ডলার 14.2 শতাংশ পণ্য অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে। 28.2 বিলিয়ন ডলার পণ্য রয়েছে যেটি 1.2% অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে। আবারো 2.8 বিলিয়ন ডলার এমন পণ্য রয়েছে যেটি চীন ছাড়া আর কোথাও পাওয়া যায় না।

কোন কোন দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে: মোবাইল ফোন ও কথা বলার যন্ত্র অন্য দেশ থেকে আমদানি করা যেতে পারে, ভারত চীন থেকে প্রায় 11 শতাংশ আমদানি করে, এর বিকল্প রয়েছে ফ্রান্স জার্মানি ইংল্যান্ড থাইল্যান্ড এবং মরিসাস একটি খুব ভালো বিকল্প আমেরিকা, হাংরি, চেক রিপাবলিক বেলারুশ ,কলম্বিয়া এর একটি বিকল্প হতে পারে ভবিষ্যতে। ভারত ইলেকট্রিক পণ্য এলসিডি ফটোসেন্সিতিভ পণ্য প্রায় 3.4 শতাংশ চীন থেকে আমদানি করে আরেকটি বিকল্প দেশ গুলি হল সাউথ কোরিয়া ও ইতালি হতে পারে আর ভবিষ্যতের জন্য জাপান বেলারুশ ও আমেরিকা এটি বিকল্প হতে পারে। অটোমেটিক ডাটা প্রসেসিং মেসিংয়ের এর আমদানি করে চীন থেকে প্রায় 3.2 শতাংশ এখন এটি এর বিকল্প হতে পারে নেদারল্যান্ডস, কানাডা আর ভবিষ্যতের জন্য ইউনাইটেড কিংডম ইটলি ও জাপান এর একটি বিকল্প হতে পারে।