2016 সালে ভারত সরকারের চুক্তি 36 টি রাফায়েল বিমান যার বাজারমূল্য 58 হাজার কোটি টাকা। এটি দুটি দেশের সরকারের মধ্যে চুক্তি।

প্রথম রাফায়েল বিমান ভারতে  2019 সালে পেয়ে গেছে। আর বাকি বিমান ভারত পেয়ে যাবে 2021 সালের মধ্যে। এখন রাফায়েলের দশটি বিমান রয়েছে তার মধ্যে পাঁচটি বিমান ভারতকে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই পাঁচটি রাফায়েল বিমান দ্বারা ভারতের সৈন্যদের কে প্রশিক্ষণ জন্য, আর প্রশিক্ষণ চলবে 8 থেকে 9 মাস এর মতো। এরপর রাফায়েল বিমান আসতে থাকবে।

এই বিমান ভারতের বাহিনীর আম্বালা বিমানঘাঁটিতে থাকবে। এটিএম মধ্য-আগস্ট থেকে রাখা হবে।

আইএএফ বিমানবাহিনী এবং গ্রাউন্ড ক্রু বিমানটির উচ্চতর উন্নত অস্ত্র ব্যবস্থাসহ বিমানের বিষয়ে ব্যাপক প্রশিক্ষণ নিয়েছে, যা এখন পুরোপুরি কার্যকর।

আইএএফ জানিয়েছিল, আগমনের পরে, প্রচেষ্টা শীঘ্রই বিমানের আন্তর্জাতিকীকরণের দিকে মনোনিবেশ করবে।

আইএএফের রাফেল জেটগুলি ভিজ্যুয়াল রেঞ্জের এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল, মাইকা মাল্টি-মিশন আইট-টু-এয়ার মিসাইল এবং স্ক্যাল্প ডিপ-স্ট্রাইক ক্রুজ মিসাইল ছাড়িয়ে উল্কা দিয়ে সজ্জিত থাকবে – এমন অস্ত্র যা যুদ্ধবিমান পাইলটদের বিমান এবং স্থল আক্রমণ করতে সক্ষম করবে স্ট্যান্ডঅফ রেঞ্জগুলি থেকে লক্ষ্যগুলি এবং একটি উল্লেখযোগ্যতার শূন্যস্থান পূরণ করে।

রাফায়েল বিমান যখন খালি থাকবে তখন তার ওজন ১০ টন হবে। আর রাফায়েল বিমানের বহনক্ষমতা ২৫ টন এর য়তো।