করোনাভাইরাসর ভ্যাকসিন এর রাশিয়া বড় সংবাদ দেই। রাশিয়া বলল এটি পৃথিবীর প্রথম করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন বা টিকা। এর ফলে সারা পৃথিবীতে একটা আনন্দ ঝড় বয়ে যায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত এর ভ্যাকসিন এর ওপর অনেক প্রশ্ন আছে। এই ভ্যাকসিন কত উপকারী তা নিয়ে বিজ্ঞানীদের মনে এক জিজ্ঞাসা রয়েছে।

এই ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশনের সময় রাশিয়ান সরকার যা কাগজপত্র দেখিয়েছে তা দেখে ভ্যাকসিনের বা টিকা অপর জিজ্ঞাসা দাঁড় করিয়ে রেখেছে। যে দলিলপত্র দেখিয়েছে তা থেকে যা সব থেকে বেশি মূল্যবান কথা হল এর মতে টিকা কত সুরক্ষিত তা নিয়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে পুরোপুরিভাবে হয়নি। রাশিয়ান ভ্যাকসিন বা টিকা স্পুতনিক 5 এর ওপর w.h.o. অনেক বিজ্ঞানী জিজ্ঞাসা করে। ডেইলি মেইলের খবর হিসাবে এই টিকার 42 দিনের মধ্যে 38 জনকে শুধু এর ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে আর তৃতীয় চরণের যে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হওয়ার কথাটা রাশিয়ান সরকার কোন ভাবে কোন দলিল দিতে চাইনা আর এখানে w.h.o. জিজ্ঞাসা দাড় কারাই। রাশিয়ান সরকার বলে হালকা শুধু জ্বর ছাড়া এই ভ্যাকসিন থেকে কোনরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা সাইড ইফেক্ট দেখা যায়নি। আবার যা দলিলে বলে 38 জন ভলেন্টিয়ার এর মধ্যে 144 ধরনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। 42 দিনের মধ্যে 31 জন এখনো এই পার্শপতিক্রিয়া নিয়ে ভুগছেন। আর তৃতীয় চরণের কি ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে তা এখন পর্যন্ত দলিলের দেওয়া হয়নি।

রাশিয়ান সরকার টিকা তো বানিয়ে ফেলেছে কিন্তু তার দলিল এখন পর্যন্ত w.h.o. কে এখন পর্যন্ত তার দলিল দিতে চাইনা বা কাগজপত্র দিতে চাইনা। যার ফলে w.h.o. আর মনে এক জিজ্ঞাসা জাগে আরে w.h.o. বলছে যে টিকা বানানোর জন্য যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তা রাশিয়া পুরোপুরিভাবে অনুসরণ করেনি তাই রাশিয়া তার টিকার তথ্য দিতে চাইনা।

রাশিয়া যা বলছে এই টিকা নামার ফলে শরীরের মধ্যে করোনা ভাইরাসের অনাক্রম্যতা শক্তি তৈরি হয়। আর বলেছে কোন ভলেন্টিয়ার এর মধ্যে কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়নি। কিন্তু ডেইলি মেইলের হিসাবে শরীরে অনেক ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে যেমন জ্বর হওয়া, শরীরে ব্যথা, শরীর খারাপ করা, আর যেখানে ইনজেকশন লাগিয়েছে সেখানে চুলকুনি হওয়া, শরীরে শক্তি না পাওয়া, খিদে না লাগা, মাথা ব্যাথা, গলা চুল কোন, সর্দি লাগা ইত্যাদি ধরণের 144 রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

w.h.o. এর প্রবক্তা ক্রিস্টিয়ান লিন্নিয়ান বলেছেন তৃতীয় চরণের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল না করেই টিকা সাধারণ মানুষের জন্য উপলব্ধ করার জন্য তার উৎপাদন শুরু করে দেওয়া।

রাশিয়ার যতসব ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ছিল তা 43 দিনের মধ্যেই সব পূরণ করে দিয়েছে তা বলছে। আর এই টি কার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখে অনেক ধরনের জিজ্ঞাসা জাগে।

রাশিয়ান সরকার ও গামালিয়া ইনস্টিটিউশনের দুজনের এই দুই ধরনের কথা বলছে যেখানে রাশিয়ান সরকার কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় না বলছে আর যেখানে গামালিয়া ইন্সটিটিউশন বলছে এই টাকাতে লাগানোর পর জ্বর হবে শরীর খারাপ যার ফলে প্যারাসিটামল খেলে তা ঠিক হয়ে যাবে। রাশিয়ার এক নিউজ খবরের হিসাবে এই টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া লিস্ট অনেক বড়।

রাশিয়ান সরকার বলে দিতে পারে যে তারা করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন বের করে নিতে পারে কিন্তু এই টাকার ওপর জিজ্ঞাসা চিহ্ন করেছে w.h.o. অনেক বিজ্ঞানীরা।