খবর এসেছে যে রাশিয়া S-400 প্রতিরক্ষা চীনকে দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে তা কেন বন্ধ করে দিয়েছে।

S-400 হল একটি আকাশে প্রতিরক্ষা অস্ত্র যা এর সামনে আছে তাকে সে ধ্বংস করে দেই যেমন রয়েছে এয়ারক্রাফট ফাইটার জেট ইত্যাদি এর রেঞ্জ হল চারশো কিলোমিটার।s 400 কিলোমিটার মধ্যে এই যা দেখতে পাবে সে ধ্বংস করে দিবে। এটি পৃথিবীতে মানা যায় এটি স্বর্গ শ্রেষ্ঠ এয়ার ডিফেন্স অস্ত্র। আর এটি তিনটি দেশ কিনেছে তুর্কি, চীন ও ভারত। এর প্রথম অস্ত্রটি কিনেছিল মা 2014 সালে।

চায়না এই অস্ত্রটি তার বিভিন্ন সামরিক যুদ্ধ অভ্যাস জায়গায় রেখে এটিকে টেস্ট করেছে। চায়না এনটিসিআরএ মেম্বার নয় তাই চায়না চার হাজার কিলোমিটারের মিসাইল কিনতে পারবে না আবার ভারত এনটিসিআর মেম্বার আর রাশিয়া ও তাই রাশিয়া ভারতকে চার হাজার কিলোমিটারের মিসাইল দিতে পারে। 

চিনি ক্রয় করেছিল পাঁচটি S-400 যাবার খবর আসছিল চীন আরেকটি এস ফোর হান্ড্রেড কিনতে চেয়েছিল আর রাশিয়া তার ফোর হান্ড্রেড খুব তাড়াতাড়ি চীনকে পৌঁছে দিয়েছিল।

বর্তমানে চীনের কাছে S-400 দুটি ইউনিট আছে।

রাশিয়া বলেছেন চীনকে যে দুটো এস S-400 তা অনেক তা বলে এখন রাশিয়া S-400 দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। আর বলে দিয়েছে যে বাকি S-400 দেওয়া হবে তা রাশিয়া বলে দিবে।

চীনের খবরের চ্যানেলগুলো বলেছেন যে S-400 দেরি হওয়ার কারণ হল রাশিয়াতে এখন করোনা ভাইরাস অনেক বেড়ে গেছে তাই এখন দেওয়া অসম্ভব বা দেরি হতে পারে। কিন্তু রাশিয়া বলেছে ভারতের S-400 এর ওপর কোন দেরি হবে ন। এর কারণ কি, যখন চীন পাকিস্তানের ঝামেলা বাধাচ্ছে অনেক দেশের সঙ্গে তখন রাশিয়ার এই এই প্রতিক্রিয়া অনেক কিছু বুঝিয়ে দেয় যা চীনের জন্য একটা ধাক্কা। 

একমাস আগে রাশিয়াতে সেন্ট পিটার্স আর্ট অফ ইস্কুলের সাইন্টিস্ট কে ধরেছে দিয়ে তার ওপরে দোষারোপ করেছে সে দেশদ্রোহ করেছে কারণ সে নাকি রাশিয়ার মিলিটারি হার্ডওয়ার চীনের কে বিক্রি করেছে। তাই এর জন্য রাশিয়া চীনকে অনেকবারই বলেছে যেন এইসব না করে। এরজন্য রাশিয়া বলেছে চীন যেন তাদের ওপরে নজর না রাখে আর তাদের মেয়েটির হার্ডওয়ার ওপরে চুরি না করে এটি রাশিয়া সরাসরি বলেছে আর যে ব্যক্তিকে ধরেছে সেরা টিক এখন ঘর বন্দি করে রেখেছে।

এখন বর্তমানে এস ফোর হান্ড্রেড রয়েছে কিন্তু এর আগে রয়েছে এস থ্রি হান্ড্রেড যা এটি রাশিয়া চীনকে বিক্রি করেছিল কিন্তু চীন এইযে হার্ডওয়ার কে রিভার্স ইঞ্জিনিয়ারিং করে তারা তাদের Hq-9 নামে এয়ার ডিফেন্স তৈরি করে। এটি Hq-9 পুরোপুরি S-300 নকল ছিল। যখন এস থ্রি হান্ড্রেড তৈরি হয়েছিল তখন পৃথিবীর মধ্যে প্রথম ক্রয় করেছিল চীন আর সেটি পরিমাণ ছিল 5 থেকে 9 পর্যন্ত।

এর স্বত্ব রাশিয়ার মিলিটারি হার্ডওয়ার চীন নকল করলেও রাশিয়া কিছু করতে পারে না কেন এর কারণ হলো রাশিয়ার সঙ্গে চীনের মিলিটারি গভীর সম্পর্ক রয়েছে। তাছাড়া রাশিয়ার ওপরে রয়েছে আমেরিকার ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন রয়েছে রাশিয়ার ওপর আর্থিক প্রতিবেদন। এর ফলে রাশিয়া চীনের উপরে কোন বড় পদক্ষেপ নিতে পারছে না।