কিছুদিন আগে বা প্রায় দুই থেকে তিন মাস আগে যখন পাঁচটি চোখের এর খুবই খবরের রয়েছিল কেন এরা খবরে ছিল একটি নথিপত্র সাধারণ মানুষের কাছে ফাঁস হয়ে গেছিল হেই নথিপত্র বলছিল যে করোনাভাইরাস কোথা থেকে তৈরি হয়েছে। আবার এই অন্তর্জাল আবার খবর এসেছে কারণ জাপান এই অন্তর্জালে যুক্ত হবার জন্য কৌতুহল দেখিয়েছেন। জাপান কেন এই অন্তর্জালের সঙ্গে যুক্ত হতে চাই আবার এই অন্তর্জাল জাপানকে কেন যুক্ত করতে চাই কি।

কিছুদিন আগে এই অন্তর্জালে একটি নথিপত্র লিক হয়ে গেছিল যেখানে বলছিল যে করোনাভাইরাস কোথা থেকে তৈরি হয়েছে। এখানে বলছিল যে চীনে যে খারাপ বাদুরের গবেষণা হয়েছিল খুব বড় করে। চীনে আরো খুবই খারাপ ও ভয়ঙ্কর রূপে ভাইরাস তৈরি করা হচ্ছে। করোনা ভাইরাসের প্রথম স্তরে যে পরিমাণে লোকের ভাইরাস হয়েছে সেইসব ভাইরাসের তথ্য গুলি সরানোর চেষ্টা করছে । একজন ল্যাব কারিগরিক এই গবেষণার বিরুদ্ধে ছিল তারপর এটাকে এক রহস্যময় ভাবে দেখা যায় না। এসব তথ্য ফাই আইস দাঁড়া বলা হয়েছিল সেই নথিপত্র। এই নথিপত্র বাইরে এসেছিলো অস্ট্রেলিয়ার একটি পত্রিকা ডেইলি টেলিগ্রাফের এই পত্রিকা এই তথ্যগুলি বাইরে বের করে দিয়েছে। এই ফাইভ আইস গ্রুপে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ইউনাইটেড কিংডম, ইউনাইটেড স্টেট এবং নিউজিল্যান্ড।

এই গ্রুপে তারা কি কি তথ্য ভাগ করে। এই পাঁচটি দেশের ইতিহাস হল একই রকম আর এই পাঁচটি দেশেই ইংলিশ ভাষা বলে। এই দেশগুলোর মধ্যে ঐতিহাসিক এবং সাংস্কৃতিক ভাবে একইরকম। এই ফাইভ আই  এর মধ্যেই ইউকে এবং ইউএস এর মধ্যে একটি এগ্রিমেন্ট সই করা আছে আরে এগ্রিমেন্টে বলা রয়েছে তারা একে অপরকে অনেক জায়গায় সাহায্য করবে সিগনালের আদান-প্রদান একে অপরকে তথ্য আদান প্রদান করবে। এরা তথ্য জোগাড় করে তারপরে তথ্যগুলিকে তাদের গ্রুপে থাকে অপরের দেশকে দিয়ে দেওয়া হয়। এই ফাইভ আইস তিনটি দেশের বিরুদ্ধে তৈরি করা হয়েছে চীন, উত্তর কোরিয়া এবং রাশিয়া এদের উপর নজর রাখার জন্য এই গ্রুপ তৈরি করা হয়েছে।

বর্তমানে খবর এসেছে যে এই ফাইভ আইস গ্রুপের মধ্যে আমাদেরও ভাগিদারী থাকা দরকার আর এই গ্রুপটি হবে সিক্স আইস বদল করা হয়।

জাপান কেন এই গ্রুপে খুবই আকর্ষণীয় জাপানের রক্ষা মন্ত্রী তারাকোনো বলেছে যে এই ফাইভ আইস গ্রুপকে বললে সিক্স প্রাইস করা যেন হয় আর আমাদের যে মূল্য রয়েছে সেটা একইরকম আর এই গ্রুপে জাপান আসার পরে তাদের তথ্য আদান-প্রদানের অনেক সহযোগিতা হবে আর এখানে জাপান অনেক বড় ভাগিদারী হতে পারে।

কেন জাপান এই ফাইভ আইস গ্রুপে যোগদান করতে চাই। ফাইড আইস এর মূল কাজ হলো তাদের মধ্যে তথ্য আদান প্রদান করা জাপান বলে এই গ্রুপে আমরা যোগদান করি আমাদের জন্য যে তথ্যগুলো খুব দরকার যা ফাইভ আইস গ্রুপের মধ্যে ঘোরাফেরা করে যা প্রথমে তারা পেয়ে যাবে এখন জাপানকে এই তথ্য নেওয়ার জন্য তাঁদের কাছে অনুরোধ করতে হয় জাপান আরো বলে আমরা আপনাদের গ্রুপের মেম্বার নয় তবে আমরা আপনাদের কাছে তথ্য শেয়ার করি এ দেখে আমাদেরকে আরো যোগ্য মনে হয় এই গ্রুপে যুক্ত হওয়ার জন্য। আপনারা এই গ্রুপে যদি আমরা প্রাপ্ত রোল দিয়ে দিবেন তাহলে তা আমরা ভালো করে করতে পারিযার ফলে আমরা আরো বেশি করে আপনাদের সঙ্গে তথ্য শেয়ার করতে পারব।

জাপানের এই গ্রুপে যুক্ত হওয়ার মূল কারণ হলো জাপানের এর সুরক্ষা মন্ত্রী বলেছে জাপানের সিকিউরিটি আমি খুবি অসুনতা মনে করি চীন ব্যবহার দেখে পূর্ব চীন সমুদ্র ও পশ্চিম চীন সমুদ্র। জাপানের সুরক্ষা মন্ত্রী বলেছেন চীন ও ভারতের মধ্যে যে সংঘর্ষ চলছে তা দেখে তিনি খুবই চিন্তা মনে করেন তাই তিনি ফাইভ আইস সঙ্গে যুক্ত হতে চাই। চীন জায়গায় জায়গায় যে সে জায়গার পরিস্থিতি পরিবর্তন করে দিয়েছো।

wikipedia.org

এই গ্রুপ কি জাপানকে যুক্ত করার জন্য খুবই উৎসাহিত। অনেক বিশ্লেষণ কারীরা বলে জাপান অনেকগুলো মূল্যবান তথ্য দিতে পারে যা জাপানের ভৌগোলিক অবস্থায় রয়েছে উত্তর দিকে চীনের খুব কাছে উত্তর কোরিয়া থেকেও কাছে ও রাষ্ট্রীয় থেকেও কাছে অবস্থান করে। এই গ্রুপ মনে করে জাপান টেকনোলজি উন্নতি দেশ এর জা স্যাটেলাইট এর তথ্য জা তারা ব্যবহার করতে পারে আর সৈন তথ্য ব্যবহার করতে পারে।

জাপান এই গ্রুপে যুক্ত হওয়ার জন্য অনেক বিশ্লেষণ কারি বলেছে জাপানকে অনেকগুলো নিয়ম পরিবর্তন করতে হবে তার দেশে। তারপর এটাকে এই গ্রুপে যুক্ত করা যেতে পারে। জাপানের খুবই দরকারী তথ্য গুলো রাখে খুবই সাধারণ ভাবে ও তাদের তথ্য তাদের জনগণের সামনে তারা বলেও দেয় এই তথ্যগুলো সামলায় তাদের সাধারণ পুলিশ তাদের কাছে কোন বড় গোয়েন্দা সংগঠন নাই যেমন রয়েছে আমেরিকার পেন্টাগন সিআইএ ইত্যাদি কিন্তু জাপানের এখন পর্যন্ত কোনো গোয়েন্দা সংগঠন নাই তার জন্য জাপানের এই তথ্যগুলো কিভাবে সামলাবে তা দেখতে হবে।